মুখে মাস্ক পরার কারণে ব্রণ ও ত্বকের সমস্যায় করণীয়

করোনা ভাইরাসের দাপটে বিশ্বের বেশির ভাগ মানুষের জীবনযাপনই ওলট পালট হয়ে গিয়েছে। অদৃশ্য শক্রকে ফাঁকি দিতে এখন বেশির ভাগ মানুষের জীবনের অঙ্গ নাক-মুখ মাস্কে ঢাকা। এর ফলে বাড়ছে ব্রণ ও ত্বকের সমস্যা— বলে জানালেন ইন্ডিয়ান সোসাইটি ফর পেডিয়াট্রিক ডার্মাটোলজির প্রেসিডেন্ট, ত্বক বিশেষজ্ঞ সন্দীপন ধর।

আমাদের ত্বকের নীচে সেবেসাস নামক এক গ্রন্থি থাকে এই গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত সেবাম বাইরের ঘাত প্রতিঘাত থেকে ত্বককে বাঁচানোর পাশাপাশি ত্বককে কোমল রাখতে সাহায্য করে। নানা কারণে রোমকূপের মুখ আটকে গেলে ব্রণ হয়। মূলত মুখেই বেশি ব্রণ দেখা যায়। তবে বুকে বা পিঠেও এই স্কিন র‌্যাশ হতে পারে। ব্রণের ডাক্তারি নাম অ্যাকনে ভালগারিস।

দীর্ঘক্ষণ মাস্ক পরে থাকার কারণে ছোট থেকে বয়স্ক অনেকেরই অ্যাকনে ভালগারিসের প্রবণতা বাড়ছে বলে জানালেন এই বিশেষজ্ঞ। এই প্রসঙ্গে আরও একজন ত্বক বিশেষজ্ঞ জানালেন যে “বেশি বয়সে ব্রণর কারণ হরমোনের ওঠাপড়া। বিশেষত মেনোপজের সময় মহিলাদের শরীরে একাধিক হরমোনের মাত্রার তারতম্য হয়। একে বলে অ্যাডাল্ট অ্যাকনে।”

বয়ঃসন্ধি থেকেই ব্রণ ও ত্বক সমস্যার সূত্রপাত। ব্রণের উৎপাতে নাজেহাল কম বেশি আড়াই কোটি তরুণ-তরুণী। তবে শুধু তরুণ-তরুণীরাই নয় ব্রণের বিড়ম্বনায় পরতে পারেন পঞ্চাশের দোরগোড়ায় পৌঁছনো মানুষও।

“ব্রণ নিয়ে বয়ঃসন্ধির ছেলেমেয়েরা এতটাই সংবেদনশীল যে, এই কারণে আত্মবিশ্বাস কমে গিয়ে হতাশা বোধ তৈরি হতে পারে। শহরাঞ্চলের বাবা-মায়েরা তাঁদের সন্তানদের ব্রণ নিয়ে কিছুটা যত্নশীল হলেও প্রত্যন্ত গ্রামে অভিভাবকরা ব্রণর ব্যাপারে তেমন কোনও গুরুত্বই দেন না। এর ফলে বিভিন্ন লোকের পরামর্শে এটা ওটা লাগিয়ে সমস্যা বাড়িয়ে ফেলে অনেকে। মুখে কালো দাগ ও ত্বক অসমান ও কর্কশ হয়ে যাওয়ারও ঝুঁকি থাকে। সাধারণত অল্প-স্বল্প ব্রণ হলে আপন নিয়মেই তা সেরে যায়। কিন্তু সমস্যা বেড়ে গেলে ত্বক বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নেওয়া উচিত।”

ইদানিং কোভিড ১৯-এর কারণে এখন সবাইকেই দীর্ঘক্ষণ মাস্ক পরতে হচ্ছে। এর ফলে মুখে ব্রণ-সহ ত্বকের নানা সমস্যা বাড়ছে। যে কোনও বয়সেই মাস্কের সংস্পর্শে ব্রণর ঝুঁকি বাড়ে। বিশেষ করে যাঁদের নাগাড়ে মাস্ক পরে থাকতে হয়, তাঁদের সমস্যার ঝুঁকি বেশি। সার্জিকাল ফেস মাস্ক যে উপাদানে তৈরি, তা ভাইরাস আটকাতে অত্যন্ত কার্যকর হলেও ত্বকবান্ধব নয়। বিশেষ করে যাঁদের সংবেদনশীল ত্বক, তাঁদের নাগাড়ে মাস্ক পরার কারণে ব্রণ-সহ নানা র‌্যাশের ঝুঁকি বাড়ে। তুলনামূলক ভাবে সার্জিক্যাল মাস্ক বা কিছু না হলেও পরিষ্কার সুতির কাপড়ের মাস্ক অনেক বেশি নিরাপদ।

একেই তো সেবেসাস গ্রন্থির নিঃসরণ, তার সঙ্গে যদি বাইরের ময়লা জমে রোমকূপে আটকে যায়, তা হলেই ব্রণ সমস্যা মাথাচাড়া দেয়। এর সঙ্গে জীবাণুর সংযোগে বেশ বাড়াবাড়ি রকমের ব্রণর ঝুঁকি থাকে। ব্যাকটেরিয়ার কারণে বাড়াবাড়ি রকমের ব্রণকে ত্বক বিজ্ঞানের পরিভাষায় বলে ‘প্রোপাইনো ব্যাকটেরিয়াম অ্যাকনে’। এ ছাড়া কালো আর সাদাটে ব্রণের মতো ফুসকুড়িকে বলে ব্ল্যাক আর হোয়াইট হেডস।

রঙিন মাস্ক থেকে অ্যাকনে ও ইরাপশনের ঝুঁকি বাড়ে বলে । মূলত রঙে ব্যবহৃত রাসায়নিক এই সমস্যার জন্য দায়ী। অ্যাকনে বা এই জাতীয় স্কিন র‌্যাশের অন্যতম কারণ রোমকূপের মুখ আটকে যাওয়া। এর হাত থেকে রেহাই পেতে ভাল করে মুখ পরিষ্কার করে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে তবেই মাস্ক পরতে হবে। যাঁদের অত্যন্ত বেশি ব্রণ বা অ্যাকনের সমস্যা আছে, তাঁরা অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ ব্যবহারের পাশাপাশি অয়েল ফ্রি লোশন লাগিয়ে মাস্ক পরবেন।

ব্রণ বা যে কোনও স্কিন র‌্যাশের সমস্যার মূলে অবশ্য রয়েছে অপরিছন্নতা। তাই মুখ পরিষ্কার রাখা জরুরি। যাঁদের অফিসে টানা ৭–৮ ঘণ্টা মাস্ক পরে থাকতে হয়, তাঁদের এই সমস্যার ঝুঁকি বেশি। কাজের ফাঁকে সম্ভব হলে অফিসের ফাঁকা করিডরে গিয়ে মাস্ক খুলে কিছু ক্ষণ থেকে মাস্ক স্যানিটাইজ করে আবার পরে নিন। কিংবা অফিসে খাবার আগে মাস্ক খুলে মুখ হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিয়ে খাবার পর মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে অন্য পরিষ্কার মাস্ক পরুন। ব্রণ হলে কখনওই তাতে হাত দেওয়া যাবে না, তা হলেই কালো দাগ হয়ে যাবে।

চিকিৎসকদের পরামর্শঃ কখনওই ওভার দ্য কাউন্টার কোনও স্টেরয়েড ক্রিম কিনে মুখে লাগাবেন না, আরও একটা ব্যাপারে সচেতন হতে হবে যে ত্বকের সমস্যা হলে নিজে থেকে লিভার টনিক খাবেন না। সমস্যা হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

শেয়ার / প্রিন্ট করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *