স্মৃতিবিজড়িত রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার পরিদর্শন করলেন-মহামান্য রাষ্ট্রপতি

রাজনৈতিক বন্দি হিসেবে ১৯৭৭ সালে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে সাত মাস কাটিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। এই বন্দিশালায় রয়েছে তার জীবনের নানা স্মৃতি। সেই স্মৃতিবিজড়িত কারাগার পরিদর্শন করলেন রাষ্ট্রপতি। গতকাল বুধবার বিকালে তিনি রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার পরিদর্শনে যান।
এ সময় কারারক্ষিরা তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। পরে তিনি কারাগারের ডিভিশন ওয়ার্ড (বর্তমান নাম মহানন্দা) ঘুরে দেখেন। পাশাপাশি ‘২০ সেল’ ও ‘কনডেম সেল’ ঘুরে দেখেন রাষ্ট্রপতি। ‘২০ সেলে’ ভয়ঙ্কর কয়েদিদের রাখা হয় বলে কারা কর্মকর্তারা জানান। কনডেম সেলে রাখা হয় মৃত্যুদ-ে দ-িতদের।
ডিভিশন ওয়ার্ডে সহবন্দি আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত আবদুল জলিল, সাবেক নেতা প্রয়াত সরদার আমজাদ হোসেনসহ অন্যদের নিয়ে স্মৃতির কথাও বলেন আব্দুল হামিদ। সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন।
তিনি জানান, রাজশাহী কারাগারে ঢোকা ও বের হওয়ার সময় জেলের নিয়ম অনুযায়ী ‘এন্ট্রি বুকে’ সই করেন রাষ্ট্রপতি। পরে পরিদর্শন বইতেও সই করেন তিনি। ডিভিশন ওয়ার্ডের সামনে একটি বেল গাছের চারা রোপণ করেন তিনি। ছাত্রজীবনে রাজনীতিতে যোগ দেয়া আব্দুল হামিদ পঁচাত্তরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকা-ের পর ১৯৭৬-৭৮ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন জেলার কারাগারে বন্দি ছিলেন।
পাকিস্তান আমলেও দুইবার কারাগারে যেতে হয়েছিল তাকে। দেশ স্বাধীনের পর সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের শাসনামালে তাকে কারাগারে যেতে হয়। ময়মনসিংহ, কুষ্টিয়া ও ঢাকার কারাগারে থাকতে হয়েছে আবদুল হামিদকে।
এর আগে দুপুরে রাষ্ট্রপতি ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারযোগে রাজশাহী পৌঁছান বলে জানান জেলা প্রশাসক হেলাল মাহদুম শরীফ। তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে আসা হেলিকপ্টারটি রাজশাহী সেনানিবাসে অবতরণ করে। রাষ্ট্রপতি সেখান থেকে কারাগার পরিদর্শনে যান। এরপর বিকেল পৌনে পাঁচটার দিকে তিনি রাজশাহী মহানগরীর শ্রীরামপুর এলাকায় পদ্মা নদী পরিদর্শনে যান।
রাষ্ট্রপতির আগমন উপলৰে শ্রীরামপুর এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের টি-বাঁধের ওপর আগে থেকেই একটি প্যান্ডেল করা হয়েছিল। রাষ্ট্রপতি সেখানে বসে কিছুৰণ পদ্মার সৌন্দর্য উপভোগ করেন। এরপর তিনি সেনাবাহিনীর স্পিডবোটে চড়ে পদ্মা নদীতে নৌভ্রমণে যান। প্রায় আধাঘণ্টা তিনি নৌভ্রমণ করেন।
পরে তিনি সেনানিবাসে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন। গতরাত ১০টা পর্যন্ত ওই অনুষ্ঠান চলছিলই। রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ আজ বৃহস্পতিবার রাজশাহী সেনানিবাসের ১ প্যারাকমান্ডো ব্যাটালিয়নকে জাতীয় পতাকা প্রদান অনুষ্ঠানেও যোগ দিবেন। পরে বিকালে তার ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে।

শেয়ার / প্রিন্ট করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *