রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সায়েন্স ফিয়েস্টায় মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

sciencemeetingরাবি সংবাদদাতা : বিজ্ঞানের আবিষ্কার ও গুরত্ব সাধারণ মানুষ প্রথম পর্যায়ে বুঝতে পারেন না। শত শত বছর ধরে মানুষ জেনে এসেছে, সূর্য পৃথিবীর চারদিকে ঘোরে। কিন্তু একজন বিজ্ঞানী যথাযথ তথ্য দিয়ে যখন বলে, পৃথবী ঘোরে। তখন প্রথম রি-অ্যকশন কী হয়, যে ওই বিজ্ঞানী পাগল। সুতুরায় বিজ্ঞান নিয়ে যারা পড়বে তাদের বিজ্ঞানের সূত্রের প্রতি বিশ্বাস, বিজ্ঞানের আবিষ্কারের প্রতি বিশ্বাস থাকতে হবে। শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে দুই দিনব্যাপী সায়েন্স ফিয়েস্টা শীর্ষক বিজ্ঞান উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এসব কথা বলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘সায়েন্স ক্লাব’ এ উৎসবের আয়োজন করে। রাজশাহীর চারঘাট-বাঘা আসনের এই সাংসদ বলেন, আজ থেকে ১০ বছর আগে ১৬ কোটি মানুষের শতকরা এক শতাংশ মানুষ জানতো না স্টোবেরি কী জিনিস? এই বিশ্ববিদ্যালয়েরই শিক্ষক বাংলাদেশের আবহাওয়ার সাথে মিল রেখে নতুন উদ্ভাবনী প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে স্টোবেরি কীভাবে চাষাবাদ করা যায়, এই বিশ্বাস যখন মানুষের মধ্যে পৌঁছে দিয়েছেন, বাকিটা কিন্তু কৃষকরা নিজেই করেছেন। এটা বাংলাদেশের জন্য, রাজশাহীর জন্য ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য গবের। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যায়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন বলেন, ‘এই উৎসবের মূল উদ্দেম্য হলো, বিজ্ঞানের মর্মবাণী সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়া। আমরা যে যুগে বাস করছি সেটা হলো আইসিটির যুগ। আইসিটি বিজ্ঞানেরই একটি অংশ। কিন্তু এটা বিজ্ঞানকে ছাড়িয়ে নয়। জীবনের চারদিকে আমরা যা কিছু লক্ষ করছি, স্বাচ্ছন্দ্য, নিরাপত্তা ও জ্ঞান অন্বেষণের ক্ষেত্রে সবকিছুই আজকে বিজ্ঞান ভিত্তিক। বিজ্ঞান নতুন সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিচ্ছে। একসময় যেগুলো ছিল কল্পকাহিনী।’ অনুষ্ঠানে ক্লাবের সভাপতি চৌধুরী আরিফ জাহাঙ্গীর তুযের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান। স্বাগত বক্তব্য দেন ক্লাবের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি জহুরুল ইসলাম মুন। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনের সমানে বেলুন-ফেস্টুন উড়িয়ে দুই দিনব্যাপী উৎসবের উদ্বোধন করেন প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। দু’দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানে প্রোজেক্ট শো প্রতিযোগিতা, সায়েন্স অলিম্পিয়াড, সায়েন্স টক, ওয়াল রিসার্স প্রেজেন্টেশন প্রতিযোগিতা, সায়েন্স বিজনেস আইডিয়া প্রেজেন্টেশন থ্রো সায়েন্স, সায়েন্স শো, স্কাই অবজারভেশন ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়েছে। এতে আগ্রহী স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও অংশ নিতে পারবে।
সূত্রঃ ভোরের বার্তা

শেয়ার / প্রিন্ট করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *